Text size A A A
Color C C C C
পাতা

সিটিজেন চার্টার

১।         অন লাইনে বিদেশগামী কর্মীদের নাম নিবন্ধনঃ

            অন লাইনে বিদেশগামী কর্মীদের নাম নিবন্ধনের জন্য নিম্নোক্ত কাগজপত্র জমা দিতে হয়।

            পূরণকৃত নির্ধারিত আবেদন ফরম,পাসপোর্ট সাইজের ০২ কপি রঙ্গিন সত্যায়িত ছবি, পাসপোর্ট/ভিসার ফটোকপি

            ( যদি থাকে),নাগরিকত্ব/জাতীয় সনদপত্রের ফটোকপি,শিক্ষাগত যোগ্যতা/অভিঞ্জতা সনদের ফটোকপি( যদি থাকে),

            মহাপরিচালক, জনশক্তি,কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো,ঢাকা এর অনুকূলে সোনালী ব্যাংক,আর.এন.রোড শাখা,

            যশোর হতে ১৫০/- ( একশত পঞ্চাশ) টাকার পে-অর্ডার ।

           

২।         বিদেশে মৃত কর্মীদের লাশ দেশে আনা ও দাফন খরচ  প্রদানঃ

            বিদেশে মৃত্যুবরণকারী কর্মীর মৃতদেহ সংশ্লিষ্ট দেশে অথবা নিজ দেশে দাফনের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ। নিজ দেশে

            লাশ আনায়ন ও দাফনের  ক্ষেত্রে জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি  অফিস হতে ৩৫,০০০/- ( পঁয়ত্রিশ হাজার) টাকা

            আর্থিকঅনুদান প্রদান । সাহায্যের জন্যনিম্নোক্ত কাগজপত্র জমা দিতে হয়ঃ

            আবেদন,মূল পাসপোর্ট, ডেথসার্টিফিকেট,এয়ারওয়েজ বিল,উত্তরাধিকার সনদ,চেয়ারম্যান সনদ ও সত্যায়িত ছবি।

            বর্তমানে প্রবাসী কল্যাণ ডেস্ক, হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর, ঢাকা হতেও লাশ পরিবহন এ দাফন

            বাবদ ৩৫,০০০/- ( পঁয়ত্রিশ হাজার) টাকার আর্থিক অনুদান প্রদান করা হয়।

            এক্ষেত্রে ওয়ারিশ সনদ ও চেক গ্রহণের ক্ষমতাপ্রাপ্ত ব্যক্তির (চেয়ারম্যান কর্তৃক) সত্যায়িত  ছবি  বিমান বন্দর হতে

            লাশ গ্রহণের সময়  জমা দিতে হয়।

 

৩।         বিদেশে  মৃত  কর্মীদের আর্থিক  অনুদান প্রদানঃ

জনশক্তি,কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর ওয়েজআর্নার্স কল্যাণ তহবিল হতে  মৃতের উত্তরাধিকারীগণকে ৩,০০,০০০/- ( তিন লক্ষ) টাকার আর্থিক অনুদান প্রদান।এক্ষেত্রে নিম্নোক্ত কাগজপত্র  জমা দিতে হয়ঃ

            আবেদন,মৃতের মূল পাসপোর্ট, ডেথসার্টিফিকেট,উত্তরাধিকার সনদ,ইনডেমনিটি বণ্ড,ক্ষমতাঅর্পণ পত্র(প্রযোজ্য ক্ষেত্রে),

            ফারায়েজনামা, অভিভাবকত্ব সনদ ( প্রযোজ্য ক্ষেত্রে) চেয়ারম্যান সনদ ও সত্যায়িত ছবি।

 

৪।         বিদেশে মৃত বাংলাদেশী কর্মীদের ক্ষতিপূরণ আদায়ঃ

            সংশ্লিষ্ট  নিয়োগকর্তার নিকট হতে মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরণ/বকেয়া পাওনা/ইন্স্যুরেন্স/সার্ভিস বেনিফিট আদায়ের লক্ষ্যে

            দূতাবাসের মাধ্যমে মামলা পরিচালনা করা হয়। মামলা পরিচালনার জন্য নিম্নোক্ত কাগজপত্র জমা দিতে হয়।

            আবেদন,মৃতের মূল পাসপোর্ট, ডেথসার্টিফিকেট, উত্তরাধিকার সনদ, ফারায়েজনামা, অভিভাবকত্ব সনদ ( প্রযোজ্য

           ক্ষেত্রে) চেয়ারম্যান সনদ, এইচ ফরম,FASফরম সত্যায়িত ছবি ইত্যাদি ।

 

৫।         প্রত্যাবর্তন  ও পূণর্বাসনঃ

            ক) বিদেশে বিপদগ্রস্থ, আহত ও জেলখানায় আটক ব্যক্তিদের দেশে ফিরিয়ে আনা ।

খ) বিদেশ হতে আহত ও অসুস্থ প্রত্যাবর্তনকারীকর্মীদের ওয়েজআর্নার্স কল্যাণ তহবিল হতে ১,০০,০০০/- ( এক লক্ষ) টাকার আর্থিক অনুদান প্রদান ।

গ) প্রবাসী কর্মীর মেধাবী ছেলে-মেয়েদের শিক্ষা বৃত্তি প্রদান ।

 

৬।         অভিযোগ দায়েরঃ

            ক) অভিবাসন সংক্রান্ত  অভিযোগ অনলাইনে দাখিলকরণ।

            খ) স্থানীয় অবৈধ জনশক্তি রপ্তানী কারকদের বিরুদ্দে বিভাগীয় শ্রম আদালত,খুলনায় মামলা দায়ের।

 

৭।         ভিসা চেকঃ

            সিঙ্গাপুর,দুবাই, বাহরাইন ও কাতার ।